বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
ফুলবাড়ী ফিটনেস পয়েন্ট ব্যায়ামাগার উদ্বোধন মাত্র দেড় ঘণ্টার ব্যবধানে দুই ছাত্র-ছাত্রীর অপমৃত্যু, চাঞ্চল্যের সৃষ্টি ফুলবাড়ীতে প্রতিমা ভাংচুর করে মন্দিরে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা-আতংকিত স্থানীয় হিন্দুরা কুড়িগ্রামে জ্বালানি তেল ও সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ বাসে ধর্ষণ: ৪ জনের স্বীকারোক্তি, ৬ জন রিমান্ডে ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি: রেলমন্ত্রী মিশরী তরুণী এখন বীরগঞ্জের পুত্রবধূ শাক দিয়ে মাছ ঢাকতেই যুবলীগ সভাপতি সুমনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন কড়া নিরাপত্তায় তাজিয়া মিছিলে মানুষের ঢল পাঁচ বিশিষ্ট নারীকে বঙ্গমাতা পদক দিলেন প্রধানমন্ত্রী




পীরগাছায় ভেঙ্গে গেছে রাস্তা ও দুই কালভার্ট : হুমকির মুখে বসতবাড়ি

পীরগাছায় ভেঙ্গে গেছে রাস্তা ও দুই কালভার্ট : হুমকির মুখে বসতবাড়ি

পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি :
রংপুরের পীরগাছায় অপরিকল্পিত ভাবে কাটা নদীর খাল খনন করায় ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে ৫ শতাধিক পরিবার। ইতিমধ্যে ভেঙ্গে গেছে প্রায় দুই কিলোমিটার কাঁচা সড়ক ও দুইটি কালভার্ট। হুমকির মুখে পড়েছে বড় দুইটি ব্রীজ ও আবাদি জমি। গতকাল বুধবার ভাঙ্গনের সম্মুখীন দুই শতাধিক মানুষ খালের পাড়ে মানববন্ধন করেছে। স্থানীয় পশ্চিমদেবু আমডারা কাটা নদী খালের উপর এ মানববন্ধন করা হয়। পরে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।
স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, প্রায় এক বছর আগে তাম্বুলপুর ও পীরগাছা ইউনিয়নের উপর দিয়ে আলাইকুমারী নদীর সংযোগের কাটা নদীর খাল প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে খনন করা হয়। স্থানীয়দের অভিযোগ, অপরিকল্পিত ভাবে খালটি গভীর ভাবে খনন করেন কাটা নদী খাল প্রকল্প সমিতি। চলতি বর্ষায় অবিরাম বর্ষণে প্রায় ১২ কিলোমিটার খালের অংশের তাম্বুলপুর ইউনিয়নের পশ্চিমদেবু আমডারা গ্রামের দুই কিলোমিটার জুড়ে দেখা দেয় তীব্র ভাঙ্গন। পানির তীব্র ¯্রােতে খালের দুই পাশের মাটি সরে গিয়ে ভাঙ্গনের সৃষ্টি করে। এতে খালের দুই পাড়ের বসবাসরত ৫ শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি, দুই কিলোমিটার রাস্তা ও আবাদি জমি ভাঙ্গনের মুখে পড়ে। ভেঙ্গে যায় সদ্য নির্মিত দুটি কালভার্ট। মাটি সরে গিয়ে হুমকির মুখে পড়েছে আরো দুটি বড় ব্রীজ ও ১০টি বসতবাড়ি। স্থানীয় লোকজনের চলাচলের চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকার মানুষজন পড়ছেন মহাবিপদে। গতকাল বুধবার ওই গ্রামের দুই শতাধিক মানুষ ভাঙ্গণ রোধে দ্রæত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য খালের পাশে মানববন্ধন করেন। প্রায় ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধনে অংশ নেন নারী-পুরুষ ও শিশু-কিশোররা। এতে বক্তব্য দেন, সমাজ সেবক আক্তারুজ্জামান মিজান, হায়দার আলী, মাওলানা সাইফুল ইসলামসহ অনেকে। বক্তাগন বলেন, আমরা রাতে ঘুমাতে পারি না। খাল কেটে আমরা কুমির এনেছি। তাই আমাদের রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। দ্রæত এই ভাঙ্গণ রোধ করা না হলে দুই শতাধিক পরিবার নি:স্ব হয়ে যাবে।
পরে ভাঙ্গণ কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ মাহবুবার রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফীন, উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজার রহমান রেজা, বজলুর রশিদ মুকুল ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ওয়াজেদ আলী সরকার।
পরিদর্শনে আসা কর্মকর্তারা অপরিকল্পিত ভাবে খাল কাটার কথা স্বীকার করে বলেন, ইতিমধ্যে ভাঙ্গন কবলিত দুই কিলোমিটার এলাকায় খালের দুই পাশে গাইড ওয়াল নির্মাণের জন্য সব কাগজপত্র ঠিক করা হয়েছে। শুষ্ক মৌসুম ছাড়া এ কাজ শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না।

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © uttorersomoy.com
Design BY BinduIT.Com