বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন




মহাসড়ক সংস্কারে ধীরগতি, দুর্ভোগ চরমে

মহাসড়ক সংস্কারে ধীরগতি, দুর্ভোগ চরমে

জসিক সরকার, কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি :
রংপুর কুড়িগ্রাম মহাসড়কের কাউনিয়া ভেলুপাড়া থেকে রাজেন্দ্র বাজার ৫.১০কিঃ মিঃ সড়কের কাজ দীর্ঘদিনেও শেষ হয়নি। ফলে দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার কাজ না হওয়ায় বৃষ্টিতে খানাখন্দে ভরপুর হয়ে গেছে সড়কটি। রাস্তার কেবলমাত্র কার্পেটিং তুলে কোনোরকমে রোলার দিয়ে ফেলে রাখায় খানাখন্দে ও রোদে ধুলা বালিতে আর বৃষ্টিতে কাদায় দুর্ভোগে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ ও যানবাহন। এছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ এই সড়কে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। কবে নাগাদ শেষ হবে এই রাস্তার কাজ? এমন ভাবনা যেন সাধারণ মানুষকে ব্যাকুল করে তুলেছে। দ্রুত এই সড়কের কাজ শেষ করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

৫ কিলো রাস্তা নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয় ১২ কোটি টাকা। রাস্তা নির্মাণে সময় দেওয়া হয় ২০২২ সালের ২৩ সে জুন পর্যন্ত। স্থানীয়রা বলছেন, ঈদের আগে যে তরিঘরি করে কাজকরা হয়েছিল এখন থেমে গেছে। কোনোরকমে রোলার দিয়ে ভিটি বালু আর পাথর দিয়ে ডলে ফেলে রাখা হয়েছে। ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ। ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছে যানবাহন।

পথচারী মকলেছুর রহমান, হালিম মিয়া, বকুল, হাসান, এমরানসহ অনেকেই বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমরা এই ভোগান্তি পোহাচ্ছি। ভারি মালামাল পরিবহন, জরুরি রোগী নিয়ে রাস্তায় চলাচল করা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এই সড়কের কাজ যেভাবে হচ্ছে তাতে কবে নাগাদ শেষ হবে কেউ বলতে পারবেনা। বাসচালক সোহেল ,শাকিল, মনজু, জাকের আলীসহ ঢাকাগামী ড্রাইভার অনেককেই বলেন, এই সড়কে আমাদের নিত্য দুর্ভোগ। যাত্রীরা রাস্তার ধুলাবালি ও রাস্তার খানাখন্দের দুর্ভোগের কারণে এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে চায় না। তিস্তা থেকে থেকে রংপুর পর্যন্ত যেতে আগে সময় লাগত ৩০ মিনিট এখন সড়কের এমন দশার কারণে যেতে সময় লাগে এক ঘন্টার বেশি । এই সড়কটিকে ঘিরে আমরা চরম দুর্ভোগে পড়েছি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ চালু করেন আবার কাজ বন্ধ রেখে আবার চলে যান। যেন দেখার কেউ নেই। কাউনিয়া উপজেলাসহ কয়েকজেলার মানুষের দুর্ভোগ লাঘব করতে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন তারা। রংপুর সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহাবুব আলম বলেন, কাজ চলমান রয়েছে, আগামী জুন মাসের ২৩ তারিখের মধ্যেই কাজ শেষ করার কথা রয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের গত দুইদিন যাবত বৃষ্টির কারণে রাস্তার এই বেহাল দশা হয়েছে ঠিকাদারের সঙ্গে কথা হয়েছে রোদ হলেই অতি দ্রুত কাজ শেষ করবেন তারা।
এ বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আমিনুল ইন্টার প্রাইজের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে মুঠোফোনে তাকে পাওয়া যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © uttorersomoy.com
Design BY BinduIT.Com