বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:১৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
রংপুর জেলায় প্রায় সাড়ে ৩ লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে আরজে টুটুল-এর পোস্টমর্টেম এখন রেডিওটুডে এবং এসএ টিভিতে একযোগে! নীলফামারীতে ২০৬৩ জন দুস্থের মাঝে জেলা পরিষদের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ রংপুরে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত ২০২২ শিক্ষাবর্ষের ছুটির তালিকা প্রকাশ বেগম রোকেয়া দিবসে নিপীড়ন বিরোধী নারীমঞ্চের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন বেগম রোকেয়া পদক ২০২১ প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনায় বিশ্বজুড়ে বেড়েছে প্রাণহানি ও সংক্রমণ অভিযাত্রিক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংসদের কার্যকরী কমিটি গঠন হেলিকপ্টার বিধ্বস্তে ভারতীয় প্রতিরক্ষাপ্রধান বিপিন রাওয়াত নিহত




রংপুর বিভাগে প্রসূতি ফিস্টুলার উপর ডেটা শক্তিশালীকরণ কর্মশালা

রংপুর বিভাগে প্রসূতি ফিস্টুলার উপর ডেটা শক্তিশালীকরণ কর্মশালা

স্টাফ রিপোর্টার :
রংপুর বিভাগে ফিস্টুলা রোগী শনাক্ত ও তথ্য সংরক্ষণ পদ্ধতি শক্তিশালীকরণ শীর্ষক একদিনের কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মশালায় ফিস্টুল আক্রান্তদের তথ্য সংরক্ষণে সঠিক পদ্ধতি অনুসরণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। সোমবার (২২ নভেম্বর) দুপুরে রংপুর আরডিআরএস ভবনে জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএইপএ) বাংলাদেশ ও ল্যাম্ব হাসপাতালের এফআরআরইআই প্রকল্পের কারিগরি সহায়তায় এ কর্মশালার আয়োজন করে রংপুর বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) কার্যালয়।

ফিস্টুলা আক্রান্তদের তথ্য সংরক্ষণে রংপুর বিভাগে এটি প্রথম কোনো কর্মশালা বলে জানান আয়োজকরা। আর অংশ নেওয়া প্রশিক্ষণার্থীরা বলেন, কর্মশালাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ বিচ্ছিন্নভাবে ফিস্টুলা রোগীর তথ্য সংরক্ষণের কারণে এখন পর্যন্ত বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আক্রান্তের সঠিক তথ্য নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। কিভাবে আগামীতে সঠিকভাবে তথ্য সংরক্ষণ করে প্রসবজনিত ফিস্টুলার উপর তথ্য শক্তিশালীকরণ সম্ভব, সেই বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

কর্মশালা শেষে আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন রংপুর বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. আবু মো. জাকিরুল ইসলাম লেলিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- রংপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা, হিরম্ব কুমার রায়, নীলফামারী জেলা সিভিল সার্জন ডা. জাহাঙ্গীর কবির, রমেক হাসপাতালের স্ত্রীরোগ, প্রসূতিবিদ্যা ও বিশেষজ্ঞ সার্জন সহযোগী অধ্যাপক (গাইনী) কামরুন নাহার জুঁই, ইউরোলজী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এফআরআরইআই প্রজেক্ট (ল্যাম্ব) ম্যানেজার মাহাতাব উদ্দিন লিটন। ফিস্টুল রোগ সম্পর্কিত ধারণাপত্র তুলে ধরেন ডেপুটি প্রজেক্ট ম্যানেজার ডা. তাহারিমা হোসেন। তথ্য সংরক্ষণ পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করেন ল্যাম্বের হেড অব এমিনি লোটাস পুলক সরকার।

কর্মশালায় স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসক, পরিসংখ্যানবিদ, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিনিধি ও সাংবাদিকসহ অন্তত ৩০ জন অংশ নেন। এতে ফিস্টুলা রোগ কী, আক্রান্তের কারণ, বর্তমান পরিস্থিতি, শনাক্তের উপায়, চিকিৎসাসেবা ও প্রতিরোধে করণী এবং তথ্য সংরক্ষণ বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

প্রসঙ্গত, নারী জনন অঙ্গের ফিস্টুলা চেনার সহজ উপায় হচ্ছে- রোগীর সবসময় প্রস্রাব বা পায়খানা অথবা উভয়ই ঝরতে থাকবে। সেক্ষত্রে প্রস্রাব বা পায়খানার সময়ে রোগীর কোন চাপ বা বেগ অনুভব হবে না। সব সময় কাপড় ভেজা থাকবে। এ সমস্যা শুরু হবে সন্তান প্রসবের পর কিংবা তলপেট/জরায়ুতে কোনো অপারেশনের পর। অর্থাৎ ফিস্টুলা হচ্ছে মাসিকের রাস্তার সাথে মূত্রতলী অথবা মলাশয়ের এ বা একাধিক অস্বাভাবিক ছিদ্র হয়ে যুক্ত হওয়া। যার ফলে মাসিকের রাস্তা দিয়ে সবসময় প্রস্রাব বা পায়খানা অথবা উভয়ই ঝরতে থাকে।

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © uttorersomoy.com
Design BY BinduIT.Com