বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:১২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
রহস্যময় ৮ মিনিটেই শেষ জীবন আত্মহত্যার আগে অন্তঃসত্ত্বা ছাত্রী চিরকুটে লিখল ‘আমার পেটে জীবনের বাচ্চা’ কাউন্সিলর কাপ টাইগার বার ফুটবল টূর্নামেন্ট-২০২০ উপলক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ডিলারের অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযোগকারী ৬ সুবিধাভোগীর মাঝে নতুন কার্ড প্রদান রংপুর মহানগরীর ১৮নং ওয়ার্ডে রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু ডোমারের চিলাহাটি হলদিবাড়ি রেলপথ পরিদর্শনে ভারতীয় হাই কমিশনার ইমরান তিস্তার চরাঞ্চলে সারা বাংলা ৮৮’র শীত সামগ্রী বিতরণ পীরগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ইউএনও’র মতবিনিময় দ্বিতীয় ধাপে করোনা মোকাবেলায় রংপুরে মাঠে নেমেছে ত্বোহা কনজুমার্সএন্ড ক্রেডিটস রংপুরে মাস্ক না পড়ায় ৬ হাজার টাকা জরিমানা




লালমনিরহাটে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ, মন্ত্রীর আশ্বাসে প্রত্যাহার

লালমনিরহাটে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ, মন্ত্রীর আশ্বাসে প্রত্যাহার

কাওছার মাহামুদ লালমনিরহাট প্রতিনিধি :
লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে খলিল নামে এক শ্রমিকের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে লাশ নিয়ে সড়ক অবরোধ করে স্থানীয় জনতা। পরে মন্ত্রীর আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে থেকে কালীগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় খলিলের লাশ নিয়ে প্রায় ৩ ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে কয়েকশ’ লোকজন।

এ সময় খলিলের মৃত্যুর জন্য উত্তরবাংলা কলেজের প্রভাষক এস তাবাস্সুম রায়হান মুস্তাযীর তামন্নাকে গ্রেপ্তার এবং কালীগঞ্জ থানার ওসি আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেনের প্রত্যাহারের দাবি করা হয়।

দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটে অবরোধস্থলে যান সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। তিনি অবরোধ প্রত্যাহারের জন্য অনুরোধ করলেও অবরোধ প্রত্যাহার করেনি বিক্ষোভকারীরা। এ সময় মন্ত্রী প্রায় ৪৫ মিনিট অবরোধস্থলে অবস্থান করেন। অবরোধের কারণে সড়কের দু’পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, কালীগঞ্জ কাশিরাম এলাকার বাসিন্দা ও কাকিনা উত্তরবাংলা কলেজের ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক এস তাবাস্সুম রায়হান মুস্তাযীর তামন্না ওই এলাকায় স্থানীয় লোকজনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করে দীর্ঘদিন ধরে হয়রানি করে আসছে। সম্প্রতি তার দায়ের করা মামলায় লালমনিরহাট আদালতে হাজিরা দিয়ে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সোমবার মারা যায় খলিল নামে এক শ্রমিক।

অভিযোগ ওঠে, ওই শ্রমিক খলিলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আর এ হত্যাকাণ্ডেরর সাথে জড়িত ওই প্রভাষক তামান্না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রভাষক এস তাবাস্সুম রায়হান মুস্তাযীর তামন্নাকে এসব কাজে সহযোগিতা করে আসছেন কালীগঞ্জ থানার ইনচার্জ (ওসি) আরজু মোঃ সাজ্জাদ হোসেন।

এসব ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকালে কালীগঞ্জে সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের বাসার সামনে খলিলের লাশ নিয়ে সড়ক অবরোধ করেন কয়েকশ’ বিক্ষুব্ধ জনতা।

অবরোধ থেকে দাবি তোলা হয়, কলেজ প্রভাষক এস তাবাস্সুম রায়হান মুস্তাযীর তামন্নাকে গ্রেপ্তার, কালীগঞ্জ থানার ওসি আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেনকে প্রত্যাহার ও স্থানীয়দের বিরুদ্ধে তামান্নার দায়ের করা সকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

অবরোধস্থলে প্রথমে এসিল্যান্ড জাহাঙ্গীর আলম পরে ইউএনও রবিউল হাসান যান। তারা অবরোধ তুলতে ব্যর্থ হলে সব শেষ ১২টা ৪৫ মিনিটে অবরোধস্থলে যান সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। এসময় মন্ত্রী প্রায় ৪৫ মিনিট অবরোধস্থলে অবস্থান করেন। প্রথমে অবরোধকারীরা মন্ত্রীকে ফিরিয়ে দিলেও পরে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে মন্ত্রীর আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেয় জনতা।

কালীগঞ্জের ইউএনও রবিউল হাসান বলেন, পুরো বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © uttorersomoy.com
Design BY BinduIT.Com